সর্বশেষ

যেখানে মুশফিক আলাদা

জানুয়ারি ৭, ২০১৮

অনলাইন ডেস্ক : তাসকিন আহমেদের দুর্দান্ত ইয়র্কারটা সামলাতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। উইকেটে যেতে না-যেতেই আউট! ত্রিদেশীয় সিরিজের আগে কাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ দল দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে খেলেছে একটি প্রস্তুতি ম্যাচে। লাল দলের হয়ে খেলা সেই ম্যাচে মুশফিক ফিরেছেন গোল্ডেন ডাক মেরে!
নিজের ব্যাটিং নিয়ে ভীষণ অতৃপ্ত মুশফিক মন খারাপ করে বসে থাকেননি। সোজা চলে গেছেন নেটে। সেখানে ব্যাটিং করেছেন লম্বা সময় ধরে। লাল দলের হয়ে পরে মুশফিক কিপিং কিংবা ফিল্ডিং করেননি। সবুজ দলের হয়ে নেমেছেন ব্যাটিংয়ে। এক ম্যাচে দুই দলের হয়ে দুবার ব্যাটিং করলেন মুশফিক!
ছয়ে নামা মুশফিককে এবার অবশ্য কেউ আউট করতে পারেননি। তবে সতীর্থ ব্যাটসম্যানদের যাওয়া-আসার মিছিলে নিজেকে ঝালিয়ে নিতে পারেননি ভালোভাবে। ৩২১ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে রুবেল হোসেন ও আবু হায়দারের তোপে সবুজ দল ৪৩.২ ওভারে গুটিয়ে গেছে ১৮৩ রানে। ৯৯ মিনিট উইকেটে থেকে ৫৮ বল খেলে মুশফিক অপরাজিত ৪৪ রানে, দলের পক্ষে সর্বোচ্চ। ইনিংসে বাউন্ডারি মেরেছেন দুটি।
প্রস্তুতি ম্যাচে শূন্য রানে ফিরেছেন, চিন্তার কী আছে! বাংলাদেশ দলের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান তিনি। দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের টপ অর্ডার ব্যাটিংয়ে অন্যতম ভরসা। এসবে যদিও তৃপ্ত হওয়ার ব্যাটসম্যান মুশফিক নন।
একেক ব্যাটসম্যান প্রস্তুতি নেন একেকভাবে। কেউ অনুশীলন সারেন এক ঘণ্টায়। কেউ আবার নেটে পড়ে থাকেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা। মুশফিক পড়বেন দ্বিতীয় দলে। যতক্ষণ না ভেতরে তৃপ্তি আসছে, ততক্ষণ ব্যাটিং করেই যাবেন। ছুটির দিনেও তাঁর অনুশীলন থেমে থাকে না। কাল লাল দলের হয়ে ব্যাটিংটা ভালো হয়নি। ফিল্ডিং না করে আবারও নেমে গেছেন সবুজ দলের হয়ে। চাইলে তিনি না-ও নামতে পারতেন। তাঁকে নিশ্চয়ই স্কোয়াডের বাইরে রাখবেন না নির্বাচকেরা।
মুশফিক এখানেই আলাদা। যতক্ষণ প্রস্তুতিটা শতভাগ হচ্ছে না, ততক্ষণ তিনি নিজেকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত মনে করেন না।

​Leave a Comment