সর্বশেষ

সরকারের আশ্বাস মানতে নারাজ শিক্ষার্থীরা

আগস্ট ৫, ২০১৮

অনলাইন ডেস্ক:  নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর গতকাল শনিবার ফের হামলা হয়। এদিন রাজধানীর ধানমন্ডি ও মিরপুর এবং নারায়ণগঞ্জ ও ফেনীতে কয়েক শ শিক্ষার্থী হামলার শিকার হয়। এতে ঢাকাতেই শতাধিক ছাত্রছাত্রী আহত হয়েছে। এদের মধ্যে পাঁচ-ছয়জনের অবস্থা গুরুতর। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পণ্ড করতে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা গতকাল তাদের লক্ষ করে গুলি ও ককটেল ছোড়ে। হামলাকারীরা রড, লাঠি ও বাঁশ দিয়ে তাদের বেধড়ক পেটায়। পুলিশ হামলাকারীদের পক্ষ নেয়।

সন্ধ্যায় ধানমন্ডিতে হামলা ও সংঘর্ষের পর আওয়ামী লীগ সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করে, রাজনৈতিক অপশক্তি কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে পুঁজি করে আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে হামলা করেছে। বিএনপি-জামায়াত অরাজনৈতিক শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে সহিংসতায় রূপ দিয়েছে।

যে ভবনে আওয়ামী লীগের এই সংবাদ সম্মেলন হয়েছে, সেটির রাস্তার দিকের জানালার ছয়-সাতটি কাচ ভাঙা দেখা যায়। আওয়ামী লীগ দাবি করেছে, তাদের ২০-৩০ জন কর্মী আহত হয়েছেন।

গত রোববার কুর্মিটোলায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী বাসচাপায় নিহত হয়। এরপর ৯ দফা দাবি নিয়ে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নামে। গতকাল ছিল এই আন্দোলনের সপ্তম দিন। সরকারের তরফ থেকে দাবি মেনে নিয়ে তা বাস্তবায়নের আশ্বাস দেওয়া হলেও শিক্ষার্থীরা তা মানতে নারাজ। তারা বলছে, বাস্তবায়ন হবে এ বিষয়ে পুরোপুরি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়বে না। এদিকে আন্দোলন দমাতে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা রাস্তায় নামবেন এবং সরকার কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে এমন খবর প্রচার হওয়ার পরও গতকাল বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী রাস্তায় নেমে আসে। সারা দিন তারা দাবি আদায়ে বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান নেয়, স্লোগান দেয়। অন্যান্য দিনের মতো তারা নগর পরিবহনে শৃঙ্খলা আনার বিষয়েও কাজ করে। তারা চালকের লাইসেন্স এবং গাড়ির কাগজপত্র যাচাই করে। এতে অনেক রাস্তায় যানবাহনের দীর্ঘ লাইন পড়ে যায়। ভোগান্তিতে পড়েন মানুষজন।

​Leave a Comment